জৈন্তাপুরে নয়াগাঙ নদী ভাঙন হুমকির মুখে বাউরভাগ- কান্দি-কাটাখাল রাস্তা

প্রকাশিত : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০     আপডেট : ২ সপ্তাহ আগে
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

নূরুল ইসলাম, জৈন্তাপুর থেকে :জৈন্তাপুর উপজেলার নয়াগাঙ নদীর অব্যাহত ভাঙ্গনে নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার পথে রাস্তা, বাড়িঘরসহ ফসলি জমি। নদী ভাঙনে বাউরভাগ-কান্দি-মল্লিফৌদ-কাটাখাল গ্রামীণ রাস্তাসহ কয়েকশ’ একর ফসলি জমি হুমকির মুখে রয়েছে। নদীর সর্বগ্রাসী ভাঙনে বাউরভাগ-কান্দি-কাটাখাল রাস্তা রক্ষা করা কঠিন হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
এলাকাবাসীর দাবি, নদীর তীরবর্তী গ্রামগুলো রক্ষা করতে জরুরি ভিত্তিতে ব্লক স্থাপন করা একান্ত প্রয়োজন। নতুবা পুনরায় বন্যা দেখা দিলে এসব এলাকার মানুষ সীমাহীন ক্ষয়ক্ষতির শিকার হবেন।
জানা যায়, ফেরীঘাট হয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ওয়াপদা বেড়ি বাঁধের বাহিরে বাউরভাগ-কাটাখাল, মল্লিফৌদ কান্দি, লামনীগ্রামসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় বড়গাঙ এবং নয়াগাঙ নদীর ব্যাপক ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে বাউরভাগ-কাটাখাল অংশে ইউনিয়ন পরিষদের গ্রামীণ রাস্তা নদী ভাঙনে বিলীন হওয়ার পথে। এদিকে, এলাকার লোকজন যাতায়াতের জন্য নিজ উদ্যোগে রাস্তা রক্ষায় বিভিন্নভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিগত বছরের নদী ভাঙন হওয়ায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে বাউরভাগ-কান্দি মল্লিফৌদ রাস্তা মেরামত ও পাকাকরণ কাজ শুরু করা হয়। কিন্তু রাস্তার আংশিক কাজ করা হলেও সম্প্রতি বন্যায় তা নদীগর্ভে চলে গেছে।
অপরদিকে, বাউরভাগ উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন বাজার থেকে ওয়াপদা বেড়ি বাঁধের বাইরের অংশে মল্লিফৌদ হয়ে নদীর পশ্চিম-উত্তর-পূর্ব পাড়ের বাউরভাগ-কাটাখাল গ্রামীণ রাস্তার অন্তত ৫ কিলোমিটারের মধ্যে বিভিন্ন স্থানে বড় বড় ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে এবং অন্তত ২ কিলোমিটার রাস্তার একাংশ অব্যাহত ভাঙনে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নদীর উভয় অংশে অন্তত ২ হাজার মানুষের বসতবাড়ি ও তাদের ধানের ফসলি জমি রয়েছে। অনেকেই নদী ভাঙনের ভয়ে বসতভিটা ছেড়ে পরিবার পরিজন নিয়ে অন্য স্থানে চলে যাচ্ছেন। নদী ভাঙনের হাত থেকে গ্রামের মানুষকে রক্ষা করতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের স্থায়ীভাবে নদী তীরবর্তী ব্লক স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করা প্রয়োজন বলে এলাকাবাসী মনে করেন।
এলাকাবাসী জানান, আলীরগাও ইউনিয়নের হিদারখালে অপরিকল্পিত বেড়িবাঁধ স্থাপন করার ফলে নয়াগাঙ নদীর পানির স্বাভাবিক গতি প্রবাহ বিঘ্নিত হয়। ফলে নদীর প্রবল স্রোত এবং দীর্ঘ সময়ে নদীতে পানি থাকায় নদী তীরবর্তী মানুষের বসতভিটা-রাস্তাঘাট ভাঙনের মুখে পড়েছে। হিদারখাল বাঁধ অপসারণ না কররে বসতবাড়ি ও জমিজমা হারিয়ে তাদেরকে পথে বসতে হবে বলে জানান স্থানীয়রা।
এলাকার বাসিন্দা আলহাজ্ব ফরিদ উদ্দিন আহমদ বলেন, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি জৈন্তাপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা হওয়ায় জনগণের প্রত্যাশা তিনি শিগগির নদী ভাঙনের হাত থেকে মানুষের বসতবাড়ি ও ফসলি জমি রক্ষায় এগিয়ে আসবেন। নদীভাঙন সমস্যার স্থায়ী সমাধানের ব্যবস্থা করতে জরুরি পদক্ষেপ নিবেন।
স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল কাইয়ুম, নূরুল ইসলাম ও প্রবাসী ফজলুর রহমান জানান, হিদারখাল বেড়িবাঁধ অপসারণ করে এখানে ব্রিজ নির্মাণ করা হলে উজান এলাকায় নদী ভাঙনের হাত থেকে কিছুটা হলেও সাধারণ মানুষ রক্ষা পাবে।
জৈন্তাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এখলাছুর রহমান জানান, বাউরভাগ-কাটাখাল গ্রামীণ রাস্তায় মাটি ভরাটসহ সংস্কার কাজ করা হয়েছে। কিন্তু নয়াগাঙ নদীর অব্যাহত ভাঙনের ফলে রাস্তা রক্ষা করা সম্ভব হচ্ছে না।
বাউরভাগ গ্রামের বাসিন্দা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম. লিয়াকত আলী জানান, নয়াগাঙ নদীর ভাঙন থেকে এই জনপদ রক্ষায় প্রশাসন এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডকে এগিয়ে আসা প্রয়োজন। কাটাখাল গ্রামের বাসিন্দা এডভোকেট এম নূরুল হক বলেন, নদীভাঙন অব্যাহত থাকলে এক সময় তার নিজের বসতভিটা ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে হবে।
উপজেলা প্রকৌশলী রমেন্দ্র হোম চৌধুরী বলেন, বাউরভাগ-কান্দি-মল্লিফৌদ প্রায় ২ কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণ কাজের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আবার কিছু অংশ ইট দিয়ে কার্পেটিং করা হলেও বন্যায় অনেকটা ভেঙে গেছে। তিনি বলেন, নদীর উভয় অংশে ব্লক স্থাপন এবং হিদারখাল বেড়িবাধঁ অপসারণ করে সেখানে ব্রিজ নির্মাণ করা হলে অব্যাহত নদী ভাঙন থেকে রাস্তা ও স্থানীয় জনগণের বসতভিটা রক্ষা পাবে। এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামাল আহমদ বলেন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে গ্রামীণ রাস্তাটি মেরামত ও সংস্কার করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু অব্যাহত নদী ভাঙনের ফলে বাউরভাগ-কান্দি-মল্লিফৌদ-কাটাখাল রাস্তা রক্ষা করা অনেকটা কঠিন হয়ে পড়েছে। তিনি এক্ষেত্রে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অগ্রণী ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান। 


  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

আরও পড়ুন

এনটিভি ইউরোপের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে নিয়োগ পেলেন ইমরান

         জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেল ‘এনটিভি ইউরোপ’...

মদিনা মার্কেট এলাকায় ব্যারিস্টার আরশ আলীর পক্ষে গণসংযোগ

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক : গণতন্ত্রী পার্টি...

কেমুসাসের ১০২০ তম সাহিত্য আসর আজ

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: কেন্দ্রীয় মুসলিম...