জাফলংগের ত্রাস আলীম-শাহজান জেল হাজতে

প্রকাশিত : 18 November, 2019     আপডেট : ৩ সপ্তাহ আগে  
  

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলংগের পাথর খেকোদের প্রধান আলীম উদ্দিন ও শাহজান জেল হাজতে। সোমবার (১৮-১১-২০১৯ইং) সকালে সিলেট জেলা জজ আদালতের জুডিশিয়াল মেজিস্ট্রেট (১ম আদালত) এর বিচারক মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ এই আদেশ দেন। গত ১৭ই অক্টোবর আলীম চক্র লেষ্টার মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন করছিল নয়াবস্তীর শহীদ মিয়াদের বাড়ির ধারে ভূমির গভীর থেকে। এসময় ছালাম মিয়া বাধা দিলে আলীম গং রা হামলা চালায় ছালাম ও স্বজনদের উপর এ ঘটনায় সিলেটের গোয়াইনঘাট থানায় আলীম উদ্দিন ও তার সহযোগী ১৪জনকে এজাহারভুক্ত করে ২১ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা {নং-২০১(১০)১৯} করা হয়। সোমবার সকালে আলীম উদ্দিন ও তার ভাই শাহজান জুডিশিয়াল মেজিস্ট্রেট (১ম আদালত) হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করলে বিচারক জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের আদেশ দেন।

প্রসঙ্গত, সিলেটের গোয়াইনঘাটে ত্রাসের রাজত্ব করছে পাথরদস্যু আলীম চক্রের। প্রত্যহ এ দস্যু চক্রের হামলা-মামলা ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। তাদের হাতে জননির্যাতন ও হয়রানী দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিঘ্নিত হচ্ছে জননিরাপত্তা। জিম্মি হয়ে পড়েছেন সাধারন মানুজন। এমন অভিযোগ উপজেলাবাসীর দীর্ঘদিনের। সন্ত্রাসী এ চক্রের প্রধান আলীম উদ্দিন সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার পূর্ব জাফলং নয়াবস্তীর ইনছান আলীর পুত্র। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার পাথররাজ্য জাফলং বল্লাঘাটের নিয়ন্ত্রন নিয়ে গেছে আলীম উদ্দিন ও তার সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। তারা পরিবেশ বিধ্বংসী লেষ্টার মেশিন ও বোমা মেশিন দিয়ে অবাঁধে অবৈধ পাথর উত্তোলন করছে জাফলং নদী থেকে। নদীর তীরবর্তী খোদাই করে গভীর ভূমি থেকে পাথর উত্তোলন করায় ঝুকির মধ্যে রয়েছে সাধারণ মানুষের বসতবাড়ি ও কৃষিজমি । কেউ প্রতিবাদ করলে তার উপর নেমে আসে নির্মম নির্যাতন ও আইনী নিপীড়ন। সম্প্রতি এ সন্ত্রাসী চক্রের নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে পঙ্গুত্ব বরন করছে এক যুবক। আহত হয়েছেন তার স্বজন ও পরিজন। অভিযোগে প্রকাশ,গত ১৭ অক্টোবর আলীমচক্র লেষ্টার মেশিন দিয়ে পাথর উত্তোলন করছিল নয়াবস্তীর শহীদ মিয়াদের বাড়ির ধারে ভূমির গভীর থেকে। বাড়িটি ঝুঁকিতে পড়ার ভয়ে এ স্থান থেকে পাথর উত্তোলনের প্রতিবাদ জানায় শহীদ মিয়ার পুত্র ছালাম মিয়া (২৪)। তখনই পাথরদস্যুরা হামলে পড়ে ছালামের উপর । দেশীয় অস্ত্র দিয়ে গুড়িয়ে দেয় তার হাত-পা, কেটে দেয় নাক। খবর পেয়ে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাবার পথে আবারো হামলার শিকার হয় ছালাম ও তার স্বজনরা। এসময় ছালাম মিয়া ছাড়াও গুরুতর আহত হন পরিবারের আরো ৪জন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুজনকে আটক করলেও সটকে পড়ে আলীম ও তার সশস্ত্ররা। এ ঘটনায় সিলেটের গোয়াইনঘাট থানায় আলীম উদ্দিন ও তার সহযোগী ১৪জনকে এজাহারভুক্ত করে ২১ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা {নং-২০১(১০)১৯} করা হয়।

আরও পড়ুন



‘দুইখানা চোখ’ এর মোড়ক উন্মোচন

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: আবৃত্তি সংগঠন...

কানাইঘাটে গ্রেফতারকৃত আলীকে নিয়ে তোলপাড়

সিলেটে ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি)...

জনগুরুত্বপূর্ণ সমস্যা সমাধানে কাজ করবো

গোয়াইনঘাট প্রতিনিধি ঃ সিলেটের জেলা...