গ্রাম আদালতকে সার্বজনিন করতে সেবার মান বৃদ্ধি করতে হবে-মীর মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান

,
প্রকাশিত : ০৭ ডিসেম্বর, ২০২০     আপডেট : ৩ মাস আগে
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক স্থানীয় সরকার বিভাগ সিলেট এর উপ-পরিচালক মীর মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান বলেছেন, গ্রাম আদালতকে সার্বজনিন করতে সেবার মান বৃদ্ধি করতে হবে। বিশেষ করে ইউনিয়ন পরিষদে সেবা গ্রহণকারীদের সাথে গ্রামআদালত সহকারীদের আন্তরিক হতে হবে। স্থানীয় জনসাধারণের ন্যায়বিচার নিশ্চিতে গ্রাম আদালতের ভূমিকা অপরিহার্য। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্রাম আদালতকে সক্রিয়করণে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে জেলা প্রশাসকবৃন্দের প্রতি নির্দেশনা প্রদান করেছেন। তাই আমাদের প্রত্যেকে স্বল্প খরচে ও স্থানীয়ভাবে বিরোধ মীমাংসার পাশাপাশি নি¤œ আদালতের দীর্ঘ মামলার জট কমানোর জন্য গ্রাম আদালতকে আরো কার্যকর করতে জোরালো ভূমিকা পালন করতে হবে ।
৭ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে সিলেট নগরীর বন্দরবাজারস্থ একটি অভিজাত হোটেলে ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন, ইউএনডিপি এবং বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সহায়তায় বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্প এর আওতায় জেলা প্রশাসন, সিলেট গ্রাম আদালত সক্রিয়করণে হিসাব সহকারী-কাম-কম্পিউটার অপারেটরদের ৩ দিনব্যাপী গ্রাম আদালত বিষয়ক প্রশিক্ষনের সমাপনী দিনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
সমাপনী দিনে বিভিন্ন অধিবেশন পরিচালনা করেন সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এএইচএম মাহফুজুর রহমান, সিনিয়র সহকারী জজ ও জেলা লিগ্যাল এইড অফিসার মোঃ মামুনুর রহমান ছিদ্দিকী, এসএমপির সিনিয়র সহকারি পুলিশ কমিশনার মতিয়ার রহমান, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর সিলেটের উপ পরিচালক শাহিনা আক্তার, বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের সিলেট জেলা ফ্যাসিলিটেটর খন্দকার রবিউল আউয়াল নাসিম।
উল্লেখ্য, কর্মশালায় বালাগঞ্জ, বিশ্বনাথ ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ১৮জন অংশগ্রহণকারী উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, এ প্রকল্প স্থানীয়ভাবে সহজে, কম খরচে, দ্রুত এবং স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় বিরোধ নিষ্পত্তি করা এবং অন্যায়ের প্রতিকার লাভের লক্ষ্যে তৃণমূলের দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠী বিশেষত: নারীদের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করছে। প্রকল্পটি বর্তমানে এর ২য় পর্যায়ে দেশের ২৭ জেলার ১২৮ উপজেলার ১,০৮০টি ইউনিয়নে প্রায় ২ কোটি গ্রামীণ জনগণের কাছে সেবা পৌঁছে দেয়ার জন্য কাজ করছে। এছাড়াও প্রকল্পটি এর ১ম পর্যায়ে দেশের ৬টি বিভাগের (ঢাকা, রংপুর, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট) ৩৫১টি ইউনিয়নে ২৫ লাখের ও বেশি স্থানীয় লোকজনকে (যার মধ্যে ১৯,৫৩,০০০জন নারী) বিচারিক সুবিধা পেতে সাহায্য করেছে।


  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

আরও পড়ুন

দেশে মদপানে কেন বাড়ছে মৃত্যু

3        3Sharesএক্সপ্রেস ডেস্ক :-একত্রিশ জানুয়ারির মধ্যরাত।...

ছোটমণি নিবাসের শিশুদের মধ্যে সুরমা লায়ন ক্লাবের ঈদ বস্ত্র বিতরণ

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক :   লায়ন্স ক্লাব...