গোলাপগঞ্জ পৌরসভা উপ-নির্বাচন নৌকার বিপরীতে মাঠে ৩ স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী

প্রকাশিত : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮     আপডেট : ২ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রোববারসিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার উপ-নির্বাচনে দুই শিবিরেই বিভক্তি। চার প্রার্থীর মধ্যে দুইজন আওয়ামী লীগ ও দুইজন প্রার্থী বিএনপি ঘরানার। এরমধ্যে দলীয় প্রতীক কেবল আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলুর। বাকি তিনজনই স্বতন্ত্র। বিএনপির টিকিট না নিয়েই স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন মহিউস সুন্নাহ নার্জিস। দলীয় প্রতীকে চেয়ে এলাকা ভিত্তিক ভোটকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন প্রার্থীরা। এতে করে জমে উঠেছে গোলাপগঞ্জ পৌর উপ-নির্বাচন। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের নিজের নির্বাচনী এলাকা গোলাপগঞ্জ হলেও এই নির্বাচনে তিনি কোনো প্রভাব বিস্তারে নেই। নিজ এলাকায় সফরে থাকলেও মন্ত্রী নির্বাচন নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছেন না। আর নৌকার পক্ষে একক ভাবে নেই নেতাকর্মীরা। যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রাবেলের পক্ষে একাংশের অবস্থান রয়েছে।

সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মোট ভোটার সাড়ে ২১ হাজার। খনিজ সম্পদে ভরপুর এই পৌরসভার শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে আওয়ামী লীগ। প্রথম নির্বাচনে মেয়র হয়েছিলেন ছাত্রলীগের তরুণ নেতা জাকারিয়া আহমদ পাপলু। গেল নির্বাচনে স্বতন্ত্র হয়ে নির্বাচিত হন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ সিরাজুল জব্বার চৌধুরী। তার মৃত্যুর পর এই পৌর সভায় উপ-নির্বাচন হচ্ছে। নির্বাচন নিয়ে ভোটারের মধ্যে তেমন আগ্রহ পরিলক্ষিত না হলেও রাজনৈতিক ময়দানে শুরু হয়েছে নানা মেরুকরণ। পাপলু ঠেকাও আন্দোলনে আবারো ঐক্যবদ্ধ হচ্ছে নাগরিক সমাজের একটি অংশ। ফলে
ভোটের রায় কার পক্ষে যাচ্ছে সেটি এখনো পরিষ্কার হয়ে ওঠেনি। এই অবস্থায়ও চার প্রার্থী অবিরাম প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচনে চারজন প্রার্থী মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরমধ্যে রয়েছেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও সাবেক মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু (নৌকা) প্রতীক, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউস সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস (নারিকেল গাছ), যুক্তরাজ্য যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুল ইসলাম রাবেল (জগ), পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী শাহিন (মোবাইল) প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। পৌরসভায় মোট পুরুষ ভোটার রয়েছেন ১০ হাজার ৯৫৮ জন এবং মহিলা ভোটার ১০ হাজার ৬৭৪ জন। মোট ওয়ার্ড রয়েছে ৯টি। ভোট কেন্দ্র ৯টি, ভোট কক্ষ ৫৯টি। পৌরসভার ১নং ভোটকেন্দ্র হচ্ছে গোলাপগঞ্জ সরকারি এমসি একাডেমি স্কুল ও কলেজ, এবং এ ওয়ার্ডে মোট ভোটার ২১৯৬ জন। ২নং ভোটকেন্দ্র ২নং ফুলবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভোটার সংখ্যা ২৩৮৫ জন। ৩নং ভোটকেন্দ্র ঘোষগাঁও মাদরাসা, ভোটার সংখ্যা ১৭৪২ জন। ৪নং ভোটকেন্দ্র হাজী জছির আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়-ভোটার সংখ্যা ২১৮৪ জন। ৫নং
ভোটকেন্দ্র দাড়িপাতন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়-ভোটার সংখ্যা ২৫৬৯ জন। ৬নং ভোটকেন্দ্র ঘোগারকুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়-ভোটার সংখ্যা ২৫৮৯ জন। ৭নং ভোটকেন্দ্র রণকেলী ২নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়-ভোটার সংখ্যা ২৮৫১ জন। ৮নং ভোটকেন্দ্র কোয়ালিটি স্কুল উপজেলা কমপ্লেক্স-ভোটার সংখ্যা ২৬০৮ জন। ৯নং ভোটন্দ্রে সৈয়দ তানভীর হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়- ভোটার সংখ্যা ২৫০৮ জন। সাবেক মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী ৩১শে মে মারা যাওয়ার পর ১ মাস ১১ দিন পর ১১ই জুলাই মেয়র পদটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। পূর্বের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে গোলাপগঞ্জ পৌরসভাকে আধুনিক পৌরসভায় রূপান্তরিত করতে চান বর্তমান মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু। তিনি বলেন- তার হাত ধরেই গোলাপগঞ্জ গ্রাম থেকে শহরে পরিণত হয়। গোলাপগঞ্জের মানুষ নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। আগামী নির্বাচনে এলাকার মানুষ উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য নৌকার পক্ষে রায় দেবেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম কিবরিযা শাহীন এলাকার মানুষের সমর্থন নিয়ে প্রার্থী হয়েছেন বলে জানান। এছাড়া- তার পক্ষে বিএনপির নেতাকর্মীরাও রয়েছেন। আর এলাকার মানুষের ওপর ভরসা রেখেই দলীয় প্রতীক ধানের শীষ প্রতীক ফিরিয়ে দিয়ে প্রার্থী হয়েছেন মহিউস সুন্নাহ নার্জিস। ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে | ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮,মানবজমিন


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পরবর্তী খবর পড়ুন : হারানময় দিনগুলো

আরও পড়ুন

বড়লেখায় হাজী আব্দুল করিম হাফিজিয়া মাদ্রাসায় পুরস্কার বিতরণ

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: মৌলভীবাজার জেলার...

সুনামগঞ্জের ১০টি উপজেলায় প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন ১৪৬ জন প্রার্থী

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: পঞ্চম উপজেলা...

মা খাদিজা জামে মসজিদ ভাংচুর,

         মা খাদিজা জামে মসজিদ ভাংচুর...