দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে প্রধান শিক্ষক হাত পা বেঁধে নির্যাতন করেছেন

প্রকাশিত : ২২ মে, ২০১৯     আপডেট : ১১ মাস আগে  
  

বুধবার বিকেলে সিলেট প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন নির্যাতিতের পরিবার। সংবাদ সম্মেলনে আহত ছাব্বির আহমদের মা প্রতিবন্ধি সমছুন্নেছা, খালা আনুর বেগম ও মামাতো ভাই রাজু আহমদ বক্তব্য রাখেন।
নির্যাতিত ছাব্বির আহমদ ভাদেশ্বর হাফিজিয়া দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণী ও হিফজ বিভাগের শিক্ষার্থী। উপজেলার নিজ ঢাকাদক্ষিণের বিদায়টিকর গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে। সে তার মায়ের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে নানা বাড়ি ভাদেশ্বরের করগাঁও উজানপাড়া গ্রামে বসবাস করে আসছে।
সংবাদ সম্মেলনে ছাব্বিরের পরিবার অভিযোগ করে বলেন, এ ঘটনায় মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে এখনো কোনো ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি প্রশাসন।
ভাদেশ্বর হাফিজিয়া দাখিল মাদ্রাসার দশম শ্রেণীর ছাত্র ছাব্বির আহমদ বলেন, গত শুক্রবার (১৭ মে) তার সাথে এক সহপাঠির ঝগড়া হয়। পরে রাতে প্রধান শিক্ষক হাফিজ আবদুল কাইয়ুম অফিস কক্ষে তাকে ডেকে নেন। এসময় ওই কক্ষে তার হাত পা বেধে নির্যাতন করেন। সারারাত চলে সে নির্যাতন। পরদিন সকালে ছাব্বিরের মা আশংকাজনক অবস্থায় স্থানীয়দের সহযোগিতায় উদ্ধার করে গোলাপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এখনো তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
ছাব্বির বলেন, তাকে নির্যাতনের পর থানায় অভিযোগ দেয়ায় মাদ্রাসা থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এতে তার পড়াশোনায় বাধা সৃষ্টি হচ্ছে।
এ ঘটনায় শনিবার (১৮ মে) নির্যাতিত ছাত্রের মামাতো ভাই রাজু আহমদ বাদি হয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন। পুলিশ তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিবে বলে তাদেরকে জানিয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে রাজু আহমদ বলেন, ‘আমার ভাই কোন অন্যায় করলে আমরা তার অভিভাবকরা ছিলাম। তাকে হাত পা বেধে নির্যাতন করা কোন বিবেকবান শিক্ষকের পক্ষে সম্ভব নয়। আমরা এর সঠিক বিচার চাই।’

আরও পড়ুন



নগরীতে অস্ত্রসহ ৬ কিশোর আটক

সিলেট নগরীর কুয়ারপাড় এলাকা থেকে...

ওসমানী বিমানবন্দর এলাকা থেকে ফেসনিডিলসহ আটক ৩

বিমানবন্দর বাইপাস এলাকা থেকে ১৬০...