কেমুসাস’র ৮৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

প্রকাশিত : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯     আপডেট : ৯ মাস আগে  
  

নতুন প্রজন্মকে জ্ঞানচর্চায় আগ্রহী করার মাধ্যমে একটি সমৃদ্ধ-কল্যাণময় সমাজ গঠনের প্রত্যয় নিয়ে দেশের অন্যতম প্রাচীন সাহিত্য প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের ৮৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টায় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সাহিত্য সংসদের বিভিন্ন পর্যায়ে সদস্য ও লেখকদের নিয়ে সাহিত্য সংসদ প্রাঙ্গণ থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। সাহিত্য সংসদের সাবেক সভাপতি ও ৮৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপ-কমিটির আহবায়ক হারুনুজ্জামান চৌধুরী র‌্যালির উদ্বোধন করেন। উদযাপন উপ-কমিটির সদস্যসচিব সেলিম আউয়ালের উপস্থাপনায় র‌্যালিপূর্ব সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী। র‌্যালিটি নগরীর প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার সংসদ প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়।

সাহিত্য সংসদের সাহিত্য আসরকক্ষে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় অনুষ্ঠিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, সাহিত্য সংসদ সিলেট অঞ্চলের সাহিত্য-সাংস্কৃতিক আন্দোলনের সুতিকাগার। এ সংসদ অসংখ্য আলোকিত মানুষের জন্ম দিয়েছে, যারা শুধু সিলেট নয়, সারা দেশকে আলোকিত করেছেন। তারা আলো ছড়িয়েছেন দেশের সীমানা পেরিয়ে দেশের বাইরেও।

সাহিত্য সংসদের সাবেক সভাপতি ও ৮৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপ-কমিটির আহবায়ক হারুনুজ্জামান চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সদস্যসচিব সেলিম আউয়ালের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাহিত্য সংসদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক সিলেটের ডাক-এর নির্বাহী সম্পাদক আবদুল হামিদ মানিক। আলোচনায় অংশ নেন সাহিত্য সংসদের সাবেক সভাপতি ভাষাসৈনিক অধ্যক্ষ মাসউদ খান, সাবেক সভাপতি কবি রাগিব হোসেন চৌধুরী, গবেষক প্রফেসর নন্দলাল শর্মা, বীরমুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী, সিলেট স্টেশন ক্লাব লিমিটেডের প্রেসিডেন্ট এডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহিদুল ইসলাম শাহিন, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.), সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী, সহসভাপতি মুহম্মদ বশিরুদ্দিন, সাংবাদিক-কলামিস্ট আফতাব চৌধুরী, সিলেট প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি এনামুল হক জুবের, আল ইসলাহ সম্পাদক এডভোকেট আবদুল মুকিত অপি, শাবিপ্রবি’র ডেপুটি রেজিস্ট্রার আহমদ মাহবুব ফেরদৌস, কবি নাজমুল আনসারী, এডভোকেট আবদুস সাদেক লিপন, সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহিত চৌধুরী এবং সভার শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন সাহিত্যকর্মী শেখ ওয়ালি উল্লাহ।
অধ্যক্ষ মাসউদ খান বলেন, স্থির লক্ষ রেখে ত্যাগের মাধ্যমে সাধনা করলে মহৎ কিছু সৃষ্টি করা যায় তার প্রমাণ কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ। সাহিত্য সংসদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন একটি মহৎ উদ্যোগ। এখন আমাদের কাজ আমাদের নতুন প্রজন্মকে বইপাঠে আগ্রহী করতে তুলতে হবে, তাদের পাঠাভ্যাস বাড়াতে হবে।
কবি রাগিব হোসেন চৌধুরী বলেন, প্রযুক্তির অগ্রসরতার যুগে পাঠক সৃষ্টি একটি ঝুঁকিপূর্ণ কাজ। তবে আমাদেরকে হতাশ হলে চলবে না। আমাদের নতুন প্রজন্ম আবার বইয়ের জগতে ফিরে আসবে, এজন্যে আমাদেরকে নিরন্তর প্রচেষ্টা চালাতে হবে।
প্রফেসর নন্দলাল শর্মা বলেন, এখনো বাংলাদেশে প্রাচীন গ্রন্থের একটি সমৃদ্ধ সংরক্ষণাগার সাহিত্য সংসদ। আমাদের এই ঐতিহ্য ধরে রাখতে হবে।
দেওয়ান মাহমুদ রাজা বলেন, আমাদের নতুন প্রজন্মকে বইপাঠে আগ্রহী করে তুলতে হবে, না হয় ইন্টারনেটের অপব্যবহারের মাধ্যমে আমরা তাদেরকে হারিয়ে ফেলবো। তবে আশার কথা নতুন প্রজন্মকে বইমুখী করতে সংসদ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
এডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহিদুল ইসলাম শাহিন বলেন, ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছে সাহিত্য সংসদ। বাংলাদেশের অনেক বিখ্যাত গ্রন্থের তথ্য-উপাত্ত গবেষকরা সাহিত্য সংসদ থেকে সংগ্রহ করেছেন। সাহিত্য সংসদে গবেষকদের জন্যে অনুকুল পরিবেশ রক্ষা আমাদের দায়িত্ব।
সভাপতির বক্তব্যে হারুনুজ্জামান চৌধুরী বলেন, আমাদের পূর্বসূরিরা আলোকিত সমাজ গঠনের লক্ষে যে প্রতিষ্ঠানের সূচনা করেছিলেন, আজ তা মহীরুহ আকার ধারন করেছে। একদিনের কুঁড়েঘর থেকে সংসদ আজ সুরম্যভবনে ঠাঁই নিয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানকে বাঁচিয়ে রাখা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব, একই সাথে সংসদ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যের সাথে একাত্ম হয়ে আমাদেরকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।
র‌্যালিপূর্ব সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে অংশ নেন সাহিত্য সংসদের সহসভাপতি কর্নেল সৈয়দ আলী আহমদ (অব.), কেমুসাস ভাষাসৈনিক মতিন উদ্দীন আহমদ জাদুঘরের পরিচালক ডা. মোস্তফা শাহজামান চৌধুরী বাহার, সিকৃবি’র রেজিস্ট্রার বদরুল ইসলাম শোয়েব, কেমুসাস’র কার্যকরী পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ ছয়ফুল করিম চৌধুরী হায়াত, জাহেদুর রহমান চৌধুরী, সৈয়দ মোহাম্মদ তাহের, নজরুল একাডেমির সভাপতি সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিন, কেমুসাস’র সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মবনু, ক্রীড়ালেখক বদরুদ্দোজা বদর, সাংবাদিক আবদুল বাতিন ফয়সল, বেলাল আহমদ চৌধুরী, এডভোকেট মো. মহিউদ্দিন, কামরুল আলম, এম. আশরাফ আলী, সরওয়ার ফারুকী, ছড়াকার চন্দ্রশেখর দেব, নাসির উদ্দিন, কামাল আহমদ, এম. আলী হোসাইন, লিপি খান, আবদুল কাদির জীবন প্রমুখ। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে একটি স্মারক বের করা হয়।

আরও পড়ুন



সিলেট সদর উপজেলার কালারুকায় দু’পক্ষের সংঘর্ষ

সিলেট সদর উপজেলার কালারুকা এলাকায়...

হাফিজ মাওলানা আদিল রশীদ হুমায়ূনের ইন্তেকাল

সিলেটের জামেয়া কাসিমুল উলুম দরগাহ...

সবজি সরবরাহের লক্ষ্যে উৎপাদন বৃদ্ধি করা একান্ত জরুরী : চেম্বার সভাপতি

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: হর্টেক্স ফাউন্ডেশনের...