আসামী ধরতে গিয়ে হামলার শিকার পুলিশের এস.আই.

প্রকাশিত : ১৭ জুন, ২০১৯     আপডেট : ১০ মাস আগে  
  

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: সিলেট নগরীর মহাজনপট্টি কাস্টঘর এলাকায় এজাহারভুক্ত আসামী ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন এসএমপির কোতোয়ালী থানার সাব ইন্সপেক্টর (এস.আই.) মো. আব্দুল গফফার। গতকাল রোববার বিকেলে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে এস.আই. আব্দুল গফফারের মাথা ফেটে যায়। তিনি বর্তমানে সিলেট এম এ জি ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে হামলার শিকার হলেও হামলাকারী নুরুকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। সাথে তার এক সহযোগীকেও আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় পুলিশ এসল্ট মামলা হয়েছে।

আটককৃতরা হচ্ছেন- সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলার মানিকপুর ইউনিয়নের তোপখানা গ্রামের আব্দুল গফুর খানের পুত্র নুরুল ইসলাম খান ও তার সহযোগী শংকর দেব। এর মধ্যে নুরুল ইসলাম খান নুরু নগরীর শিবগঞ্জ সাদিপুর সুরমা আবাসিক এলাকার নোয়াগাও ৮৪/১ এর খান ভিলার বাসিন্দা। শংকর দেব দক্ষিণ সুরমা থানার জইনপুরের মৃত শ্যামল দেবের পুত্র।

হামলার শিকার কতোয়ালী থানার এস আই আব্দুল গফফার জানান, আটক নুরুল ইসলাম খান নুরু একাধিক মামলার আসামী। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ব্যাংক ও লোন প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা এনে নানা পন্থায় আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। নগরীর বন্দরবাজার রংমহল টাওয়ার সংলগ্ন মার্কেটে তার একাধিক চুলাঘরের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

তিনি জানান, আসামী নুরুল ইসলাম খান নুরু সর্বশেষ দি ঢাকা মার্কেন্টাইল কো অপারেটিভ ব্যাংক লিমিটেড আম্বরখানা শাখার আব্দুল আজিজ নামের এক কর্মকর্তাকে হামলা চালিয়ে আহত করে। তিনি লোনের টাকা চাইতে গিয়ে হামলার শিকার হয়ে কতোয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং ১০ (০৭/০৬/১৯)। ওই মামলার আসামী নুরুল ইসলাম খান নুরু। গতকাল রোববার বেলা ২টার দিকে এজাহারনামীয় আসামী নুরুর অবস্থান নিশ্চিত হয়ে রংমহল টাওয়ার এলাকায় ইকবাল চুলাঘরের পাশে অবস্থান করছিলেন এসআই আব্দুল গফফার। আসামীর অবস্থান নিশ্চিত হয়ে আব্দুল গফফার সঙ্গীয় ফোর্সের অপেক্ষা করছিলেন। এমন সময় টের পেয়ে আসামী নুরু দৌড় দেয়। পিছনে পিছনে এস আই আব্দুল গফফারও দৌড় দেন। কাস্টঘর এলাকায় গিয়ে আসামী ঝাপটে ধরতে সক্ষম হন তিনি। এরই মধ্যে তাকে কিলঘুষি মারতে থাকে আসামী। এক পর্যায়ে তার কাছ থেকে ছুটে পালিয়ে যেতে থাকে। সে একটি মার্কেটের দোকানে ঢুকে। সেখান থেকে বেরিয়ে যেতে পুনরায় চেষ্টা করে আসামী নুরু। এক পর্যায়ে আসামী নুরু এসআই আব্দুল গফফারের মাথায় আঘাত করে।

এস আই আব্দুল গফফার আরো জানান, আসামী ওই এলাকার ব্যবসায়ীদের পরিচিত হওয়ায় পুলিশকে সহযোগিতায় কেউই এগিয়ে আসছিলো না। এক পর্যায়ে সে একটি দোকানে ঢুকে। তখন ঐ দোকানের ব্যবসায়ী এসআই আব্দুল গফফারের মাথা ফেটে গেছে দেখে নুরুকে ভেতরে রেখে সাটার লাগিয়ে দেয়। ততক্ষণে পুলিশের ফোর্স এসে উপস্থিত হয়। এ সময় শংকর দেব নামে নুরুর এক সহযোগীকেও আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। এছাড়া, জকিগঞ্জের খলাদাপনিয়া গ্রামের নাজমুল ইসলাম নামের এক ঠিকাদারের মামলারও আসামী নুরুল ইসলাম খান নুরু।

কতোয়ালী থানার ওসি মোঃ সেলিম মিয়া জানান, নিয়মিত মামলা ছাড়াও নুরুল ইসলাম খান ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। যার নং ৩০ (তাং-১৬/০৬/১৯)। ওসি জানান, হামলাকারীদের কোনভাবে ছাড় দেয়া হবে না। আটককৃতদের আজ সোমবার আদালতে হাজির করা হবে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন