কামরুল আলমের জন্মদিন উপলক্ষে ছড়াসন্ধ্যা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত : ২৬ নভেম্বর, ২০১৯     আপডেট : ৪ মাস আগে  
  

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক:

শিশুসাহিত্যিক-ছড়াকার কামরুল আলমের ৩৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ছড়ার ছোটোকাগজ-ছড়াকণ্ঠ ও পাপড়ি বন্ধুমেলার উদ্যোগে ২৫ নভেম্বর ২০১৯ সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ, সিলেটে এক মনোজ্ঞ ছড়াসন্ধ্যার আয়োজন করা হয়।
কবি আজমল আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জন্মদিনের ছড়াসন্ধ্যায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ, সিলেটের সহ-সভাপতি গল্পকার সেলিম আউয়াল। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ মহা-ব্যবস্থাপক মো. আমিনুল ইসলাম, অধ্যাপক কবি বাছিত ইবনে হাবীব, কলামিস্ট সালেহ আহমদ খসরু, বাংলাদেশ ব্যাংকের যুগ্ম-পরিচালক মো. সাজ্জাদুর রহমান, কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক অ্যাডভোকেট কবি আব্দুল মুকিত অপি ও কলামিস্ট মোহাম্মদ আব্দুল হক।
ছড়াসন্ধ্যায় ছড়াকার কামরুল আলমকে নিবেদিত ছড়াপাঠ ও জন্মদিনের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন ঔপন্যাসিক আলেয়া রহমান, ছড়াকার নজমুল হক চৌধুরী, গল্পকার তাসলিমা খানম বীথি, শিশুসাহিত্যিক ও নাট্যাভিনেতা মিনহাজ ফয়সল, কবি তাসনিম যায়েদ, মহালক্ষী সরকারি প্রাথিমক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক সামসুন্নাহার, ছড়াকার শাহজাহান শাহেদ, কবি আহমদ সালেহ, ছড়াকার আব্দুল কাদির জীবন, কবি অজয় বৈদ্য অন্তর, ছড়াকার মিজান রহমান, কবি জেনারুল ইসলাম, ইফতেখার শামীম, আলমগীর হোসাইন, রবিউল ইসলাম, আবুযর মাহতাবী, মুয়াজ বিন এনাম, সাইদুল ইসলাম সাইদ, বাছিত চৌধুরী, নাঈমুল ইসলাম গুলজার, আহমদ কয়েছ, মিদহাদ আহমদ, জাহেদ জয়, সাইফুল্লাহ মনসুর ইসহাক, আব্দুল্লাহ বিন আমির প্রমুখ।
আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তারা ছড়াকার কামরুল আলমের ছড়া ও শিশুসাহিত্যের বিভিন্ন অনুষঙ্গ নিয়ে আলোকপাত করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে গল্পকার সেলিম আউয়াল বলেন, লেখকদেরকে বয়স দিয়ে নয়, মূল্যায়ন করতে হবে তাঁর সৃষ্টিকর্ম দিয়ে। ছড়াকার কামরুল আলমের অনেকগুলো বই প্রকাশিত হয়েছে; এই বইগুলো নিয়ে আলোচনা করা এখন সময়ের দাবি।
অধ্যাপক কবি বাছিত ইবনে হাবীব বলেন, গত দুই দশক থেকে ছড়াসাহিত্য চর্চা করে মানুষের হৃদয়তন্ত্রীতে ঝঙ্কার তুলতে পেরেছেন যে ক’জন তরুণ ছড়াকার, কামরুল আলম তাঁদেরই একজন।
বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, ছড়াকার কামরুল আলম সরবে-নীরবে ছড়ার ঝঙ্কারে জাগাতে চেয়েছেন সমাজকে। তাঁর ছড়ায় খেটে খাওয়া মানুষ ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের কথা ফুটে উঠতে দেখা যায়।
কলামিস্ট সালেহ আহমদ খসরু বলেন, কামরুল আলম শিশু-কিশোরদের কথা ভাবেন। তাই তাঁর ছড়া ও ছোটগল্পগুলোতে শিশু-কিশোরদের মনের কথাগুলো ফুটে ওঠে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের যুগ্ম-পরিচালক কবি সাজ্জাদুর রহমান বলেন, কামরুল আলমের লেখায় গ্রাম ও প্রকৃতি ফুটে উঠেছে নানা ব্যঞ্জনায়।
কলামিস্ট মোহাম্মদ আব্দুল হক বলেন, ছড়াকার কামরুল আলম ছড়ার ব্যাকরণ অত্যন্ত ভালো করে বুঝেন এবং তরুণদেরকে বুঝিয়ে দেন। তাই তাঁর নিকট তরুণ ছড়াকারদের ভিড় লেগেই থাকে।
ছড়াসন্ধ্যার শুরুতে মহাগ্রন্থ আল-কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন ছড়াকার আহমদ কয়েছ। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন গল্পকার জুনায়েদুর রহমান। বিজ্ঞপ্তি

 

আরও পড়ুন