কানাইঘাটে ফের নৌযান চালক-শ্রমিকদের অবস্থান ধর্মঘট

,
প্রকাশিত : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০     আপডেট : ৪ সপ্তাহ আগে
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক বুলেট বোমা বুকে নেব – নৌকা মোদের ছেড়ে দিব, আমাদের দাবী আমাদের দাবী – মানতে হবে মানতে হবে…..। ইত্যাদি স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে কানাইঘাট থানা গেইট থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের সম্মুখ পর্যন্ত। গত বুধবার দুপুর ১২টা হতে সুরমা নদীতে আটকে পড়া শত শত নৌ-শ্রমিকরা প্রথমে মিছিল সহকারে কানাইঘাট থানার সামনে এসে সিলেট-দরবস্ত সড়কে প্রায় আধ ঘন্টা অবস্থান নেয়, এতে রাস্তার উভয় পাশের্^ যানজট সৃষ্টি হয়। পরে থানা পুলিশ তাদের এখান থেকে সরিয়ে দিলে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ বারিউল করিম খানের কার্যলয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচী পালন করেন। এ সময় পুলিশ তাদের শান্ত করে সেখান থেকে সরে যাওয়ার কথা বলে। কিন্তু শ্রমিকরা ভারী বৃষ্টি উপেক্ষা করে তাদের কর্মসূচী পালনে অনড় থাকে। একপর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষ থেকে লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপি’র চেয়ারম্যান ডাঃ ফয়াজ উদ্দিন শ্রমিকদের প্রতিনিধি হিসাবে আজিম উদ্দিন ও ফরিদুল আলমকে নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিয়ে যান। সেখানে শ্রমিকরা তাদের আকুতি জানালে নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ বারিউল করিম খান তাদের শান্তনা দিয়ে বলেন তিনি বিষয়টি তার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানাবেন। পরে শ্রমিকদের পক্ষ থেকে মোঃ টিটু মিয়া স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান তারা প্রায় দেড় মাস পূর্বে ভাড়া হিসেবে লোভাছড়ায় বলগেট ও স্টীল নৌকা নিয়ে এসেছেন। এ সময় কানাইঘাট উপজেলার কোথাও প্রশাসন তাদের কোন ধরনের বাঁধা দেয়নি। এমনকি তাদের একেকটি নৌকায় পাথর লোড করতে ৩ থেকে ৪ দিন সময় লেগেছে, সে সময়ও তাদের কোন ধরনের বাধাঁ দেওয়া হয়নি। পরে তারা পাথর বোঝাই জাহাজ ও বলগেট লোভাছড়া থেকে ছেড়ে দিয়ে প্রায় ১২ কিলোমিটার অতিক্রম করে কানাইঘাট সদরে আসলে পুলিশ আইনী জটিলতার দোহাই দিয়ে তাদের প্রায় ৫ শতাধিক বলগেট ও স্টীল নৌকাগুলো গুলো আটক করে দেয়। এমতাবস্থায় আজ দেড় থেকে দু’মাস ধরে তাদের খবর কেউ নিচ্ছে না। এমনকি যেসব ব্যবসায়ীদের পাথর, তারাও লাপাত্তা হয়েছে। শ্রমিকরা পাথর মালিকদের ফোন দিলে তারা ফোন রিসিভ করছে না। যার কারনে তারা চরম বিপাকে পড়েছেন। বর্তমানে তাদের নৌকায় যে সব খাবার ছিল তা শেষ হয়ে গেছে। তাদের সাথে যে পরিমান টাকা ছিল তাও দীর্ঘ দেড় মাসে খরচ করা হয়েছে। তারা নিরুপায় হয়ে আন্দোলনে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। তারা পুলিশের বুলেট বুকে নিয়ে মরতে চান, নতুবা সেচ্ছায় গ্রেফতার হতে চান, অবস্থান কর্মসূচী থেকে এমনটাই কথা বলছেন তারা। তা না হলে প্রশাসন পাথর রেখে তাদের নৌকা নিয়ে যাওয়ার সুযোগ দিতে হবে।

বার্তা প্রেরক


  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

আরও পড়ুন

আমিরাতে সৈয়দ মহসিন আলীর জন্মদিনে আলোচনা ও দোয়া

         লুৎফুর রহমান, ফুজিরাহ থেকে ফিরে:...

মধ্যপ্রাচ্যের জেলখানা খালি, উড়োজাহাজ ভর্তি হয়ে বাংলাদেশিরা ঢাকা ফিরছেন!

         করোনার কারণে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো তাদের...

সিলেটে করোনা পরীক্ষা করা প্রথম ৯৪ জনের করোনা নেই

         সিলেট ওসমানী হাসপাতালে কোভিড-১৯ শনাক্তকরণ...