কর্মী আটকে: উপ-পুলিশ কমিশনার কার্যালয়ের সামনে আরিফের অবস্থান

প্রকাশিত : ২১ জুলাই, ২০১৮     আপডেট : ২ বছর আগে  
  

দক্ষিণ সুরমার ঝালোপাড়া এলাকা থেকে শুক্রবার রাতে প্রচারণা চালানো তিন কর্মীকে আটকের করা হয়েছে-এমন অভিযোগ করে উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এর কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়েছেন সিলেট সিটি নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীসহ নেতাকর্মীরা।

প্রচারণা বাদ দিয়ে শনিবার বিকেল পৌণে ৩টা থেকে তারা উপশহরস্থ উপ-পুলিশ কমিশনারের (দক্ষিণ) কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচি শুরু করেন।

এ ব্যাপারে আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, পুলিশ সিলেটের রাজনৈতিক সম্প্রীতি নষ্ট করছে। কোনো মামলা-ওয়ারেন্ট ছাড়াই আমার কর্মীদের ধরপাকড় করছে। সিলেটে এই ধরণের কর্মকান্ড সহ্য করা হবে না। আমরা এমন ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলবো।

আরিফসহ ধানের শীষের কর্মী-সমর্থকদের দাবি, শুক্রবার রাতে নগরীর ঝালোপাড়া ১০৮নং বাসা থেকে রাসেল আহমদ, লিয়াকত ও সুমন আহমদ নামক তাদের ৩ কর্মীকে ধরে নিয়েছে পুলিশ। তবে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ আটকের বিষয়টি অস্বীকার করলে আরিফুল হক চৌধুরীসহ বিএনপি নেতাকর্মীরা উপ-পুলিশ কমিশনারের (দক্ষিণ) কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন।

এক পর্যায়ে পুলিশ তাদের আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করলে এবং তাদের কোর্টে চালান দেওয়ার আশ্বাস দিলে বিএনপি নেতা-কর্মীরা বিকেল ৪টার দিকে অবস্থান কর্মসূচি থেকে সরে আসেন।

অবস্থান কর্মসূচি উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এমএ হক, খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, মহানগর বিএনপি সভাপতি নাসিম হোসাইন, যুগ্ম সম্পাদক আজমল বখত সাদেক, সহ সভাপতি ডা. নাজমুল হক, ছালেহ আহমদ খসরু, বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জিকে গৌছ, বিএনপি নেতা মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল, সিলেট মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মিফতাহ সিদ্দিকী, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান আহমদ চৌধুরীসহ সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

আরও পড়ুন