কমলগঞ্জে সংবাদ সম্মেলন কর্মস্থলে ফিরে যেতে চান মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসীরা

Alternative Text
,
প্রকাশিত : ১২ জুলাই, ২০২০     আপডেট : ৭ মাস আগে
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার আটকে পড়া মধ্যপ্রাচ্যপ্রবাসীরা কর্মস্থলে ফিরে যেতে সরকারের সহায়তা চেয়েছেন। তাদের কারো ভিসার মেয়াদ, কারো টিকেটের মেয়াদ, কারো আকামার (কাজের অনুমতিপত্র) মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে। এ কারণে তারা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। দেশে অবস্থানের ফলে তাদের কেবলই ঋণের বোঝা বাড়ছে। শনিবার দুপুর ২টায় উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের একটি কমিউনিটি সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে তারা তাই সরকারি সহায়তার দাবি জানান।
লিখিত বক্তব্যে প্রবাসীরা বলেন, পরিবার-পরিজন ও সংসারের হাল ধরতে বিভিন্ন সময়ে তারা কাতার, আরব-আমিরাত, বাহরাইন, ওমান, কুয়েত, সোদিআরব, মালয়েশিয়া সহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে শ্রমিক হিসেবে গমন করেন। দীর্ঘদিন ধরে এসকল দেশে কাজ করে উপার্জিত আয়ের একটি বড় অংশ দেশে পাঠিয়ে পরিবার ও সংসারের ভরণপোষন চালিয়েছেন। তাদের শ্রমঘামে উপার্জিত আয় থেকে প্রেরিত রেমিটেন্স সরকারের কোষাগারে রাজস্ব আয়েরও অবদান রাখছে। তবে ছুটিতে এসে করোনা মহামারীর কারণে কমলগঞ্জের প্রায় সহ¯্রাধিক প্রবাসীরা বর্তমানে নানা জটিলতায় প্রবাসের কর্মস্থলে ফিরে যেতে পারছেন না। প্রবাসীদের ভাষ্য, এই সময় পর্যন্ত তারা ব্যাপক ঋণগ্রস্ত হওয়ায় চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিনাতিপাত করছেন। তারা বলেন, সম্মানের সাথে প্রবাসে চাকরি করে আসলেও দেশে এসে আটকা পড়ায় তাদের কফিলরা প্রবাসে ফিরে যাওয়ার জন্য বারবার যোগাযোগ করছেন। বিভিন্ন ট্রেভেলস এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করলেও তারা সঠিক কোনো তথ্যাদি পাচ্ছেন না। ফিরত টিকেট থাকার পরও এসব প্রতিষ্ঠান প্রচুর টাকা দাবি করছে বলে অভিযোগ করেন।
প্রবাসীরা জানান, একদিকে অর্থাভাব ও এনজিওসহ বিভিন্ন ঋণের ভারে জর্জরিত হয়ে পড়ছেন। এনজিও ঋণ ও ব্যক্তিগত ঋণ ছাড়াও কর্মক্ষেত্রে চাকুরিচ্যুতির শঙ্কাসহ নানা দুশ্চিন্তায় আতঙ্কিতভাবে সন্তানাদি ও পরিবার পরিজন নিয়ে তারা মানবেতর জীবন যাপন করছেন। দেশে থাকাকালীন সময়ে প্রবাসী পরিবার সমুহকে প্রণোদনা ও সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ প্রদানের দাবি জানান। এসব বিষয়ে গত ৬ জুলাই কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রীর কাছেও তারা লিখিত অভিযোগ করেন।
সমাজকর্মী তোয়াবুর রহমানের সঞ্চালনায় প্রায় অর্ধশতাধিক প্রবাসীর উপস্থিতিতে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন দুবাই প্রবাসী আহমদ আলী। এসময়ে তাদের নানা সমস্যার কথা তুলে ধরেন বক্তব্য রাখেন কুয়েত প্রবাসী অমর মাহমুদ আনসারী, দুবাই প্রবাসী আবদুল হান্নান, কবি জয়নাল আবেদীন, আনোয়ার খাঁন, ওমান প্রবাসী সোহেল আহমদ, কাতার প্রবাসী মতিউর রহমান, মালেশিয়া প্রবাসী মুকুল মিয়া।
ওমানপ্রবাসী সোহেল আহমদ বলেন, আমরা পরিবারের আট, দশ জন সদস্যের হাল ধরলেও আমাদের সমস্যা নিয়ে কাউকে বলতেও পারছি না, আবার সইতেও পারছি না। জনপ্রতিনিধিরাও বিভিন্ন দুঃসময়ে আমাদের কাছ থেকে সহায়তা নিলেও আমাদের প্রতি কারো সহানুভূতি পাওয়া যায়নি। আমরা প্রবাসী শ্রমিক, গার্মেন্টস শ্রমিক ও চা শ্রমিকরাই দেশের সোনার ছেলে। দেশে আটকাপড়া প্রবাসী শ্রমিক হিসেবে মানবিক দিক বিবেচনা করে দেশে থাকাকালীন সময়ে আমাদের প্রণোদনা ও সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ প্রদান এবং সরকারি উদ্যোগে প্রবাসে ফেরত যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সহায়তা কামনা করছি।
এব্যাপারে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, সরকার প্রবাসীদের প্রতি সবসময় আন্তরিক রয়েছেন। তাদের লিখিত আবেদন যথাসময়ে মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দিয়েছি।


  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

আরও পড়ুন