কবি অনিন্দ্য আনিসের বিদায় উপলক্ষে কবিতাসন্ধ্যা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত : ৩০ মার্চ, ২০১৯     আপডেট : ১ বছর আগে  
  

আত্মা পরিশুদ্ধ না হলে কালোত্তীর্ণ কবিতা লেখা যায় না। প্রত্যেক লেখকের মনের পরিশুদ্ধি একান্ত প্রয়োজন। সাহিত্যে কোন বড়কবি ছোটকবি বলে কিছু নেই। সবাই কবি। কোন কবির কোন কবিতা কোনকালে বিনষ্ট হয়নি। সব কবিতাই কবিকে মর্যাদার আসনে নিয়ে গেছে। বক্তারা তরুণদেরকে কবিতা লিখতে উদ্ভুদ্ধ করে বলেন – তরুণরাই যুগ সৃষ্টিকারী।নতুন কিছু তারাই সৃষ্টি করে। কবি অনিন্দ্য আনিসের বিদায় উপলক্ষে প্রাকৃত প্রকাশের উদ্যোগে এবং জননী ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় কবিত সন্ধ্যার অনুষ্ঠানে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। শুক্রবার রাতে আম্বরখানাস্থ গোল্ডেন টাওয়ারে অনুষ্ঠিত কবিতাসন্ধ্যায় সভাপতিত্ব করেন কবি মুকুল চৌধুরী।
দৈনিক বিজয়ের কণ্ঠ পত্রিকার সাহিত্য সম্পাদক, প্রাকৃত প্রকাশের সত্ত্বাধিকারী কবি মামুন সুলতান ও জননী ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন সুজাতের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রধান কবি প্রফেসর ড. শহিদুল্লাহ আনসারী। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ কবি কালাম আজাদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন কবি মহিউদ্দীন আকবর, লে. কর্নেল (অব.) কবি সৈয়দ আলী আহমদ, সাহিত্য সমালোচক
অধ্যাপক কবি বাছিত ইবনে হাবীব, কবি এখলাছুর রাহমান, ছড়াকার শাহাদাত বখত, কবি শফিকুর রহমান চৌধুরী, আল ইসলাহ সম্পাদক কবি আব্দুল মকিত অপি এডভোকেট, ছড়াকার আব্দুস সাদেক লিপন এডভোকেট, কবি এম এ ফাত্তাহ ও অধ্যক্ষ মো. ছয়ফুল করিম চৌধুরী হায়াত প্রমুখ। শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন শেখ মিলন আহমদ।
শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন লেখক শামসীর হারুনুর রশিদ, এডভোকেট এম এ মালেক, ঔপন্যাসিক আলেয়া রহমান, কবি সাজ্জাদুর রহমান, কবি মোঃ আব্দুল হক, কবি শফিকুল ইসলাম সোহাগ, ছড়াকার দিলোয়ার হোসেন দিলু, কবি কামাল আহমদ, কবি বেনিয়ামিন রাসেল, কবি মিজান মোহাম্মদ, কবি জালাল জয়, গল্পকার তাসলিমা খানম বীথি, সাংবাদিক কবি মোঃ আব্দুল বাসিত, কবি হাবীবুল্লাহ মিছবাহ, কবি রুহুল আমীন রুবেল,দেলোয়ার খান, শেখ মুস্তাফিজ তৈমুর, কবি আব্দুল কাদির জীবন, কবি মোঃ নাসির উদ্দীন, কবি মোঃ জহিরুল ইসলাম, কবি আব্দুস শহীদ মাটি ও কবিকন্যা গল্পকার আরবী রহমান কুসুম । গান পরিবেশন করেন গীতিকবি বাহা উদ্দীন বাহার।
বিদায়ী অতিথি কবি অনিন্দ্য আনিস বলেন- সিলেটের কাছে আমি ঋণী। সিলেট আমাকে যা দিয়েছে তার জন্য কৃতজ্ঞ। এই ঋণ আমি আজীবন স্মরণ রাখবো।
অনুষ্ঠানে মানপত্র পাঠ করেন প্রাবন্ধিক নাসিম আহমদ লস্কর । উপস্থিত অনেকেই কবিকে নানা প্রকার উপহার সামগ্রী তুলে দেন। অনেকেই ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। একটি সুন্দর ও সার্থক অনুষ্ঠানের জন্য সভাপতি কবি মুকুল চৌধুরীর ধন্যবাদ জ্ঞাপনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি হয়।

আরও পড়ুন