ওসমানী নিয়মতান্ত্রিক ও সংসদীয় রাজনীতিতে বিশ্বাসী ছিলেন

প্রকাশিত : ০৯ অক্টোবর, ২০১৮     আপডেট : ১ বছর আগে  
  

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: ওসমানী নিয়মতান্ত্রিক ও সংসদীয় রাজনীতিতে বিশ্বাসী ছিলেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন সুফিবাদে বিশ্বাসী। তিনি নীতিহীন মানুষের বিরুদ্ধে ছিলেন আপোষহীন। ওসমানীর আদর্শকে লালন করলে দেশ এগিয়ে যাবে সমৃদ্ধি-শান্তির পথে।
মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক বঙ্গবীর জেনারেল এম এ জি ওসমানীর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ আয়োজিত আলোচনা সভা ও নিবেদিত কবিতা পাঠের আসরে বক্তারা একথা বলেন। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় সাহিত্য সংসদের সাহিত্য আসর কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সাহিত্য সংসদের সহসভাপতি আ ন ম শফিকুল হক। সংসদের গূণীজন মূল্যায়ণ সেলের উদ্যোগে সেলের সদস্যসচিব কবি সৈয়দ মবনুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় মূখ্য আলোচকের বক্তব্য রাখেন সংসদের সাবেক সভাপতি হারুনুজ্জামান চৌধুরী, মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কেমুসাসের সহসভাপতি মুহম্মদ বশিরুদ্দিন, আলোচনায় অংশ নেন বঙ্গবীর জেনারেল ওসমানী মেমোরিয়াল ট্রাস্টের ট্রাস্টি এডভোকেট নওশাদ আহমদ চৌধুরী, সিলেট স্টেশন ক্লাব লিমিটেডের প্রেসিডেন্ট এডভোকেট এমাদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন, সংসদের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী, পাঠাগার সম্পাদক আহমদ মাহবুব ফেরদৌস, কার্যকরী পরিষদ সদস্য মুহিত চৌধুরী, রুহুল ফারুক, জাহেদুর রহমান চৌধুরী, সৈয়দ মুহম্মদ তাহের এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন গুণীজন মূল্যায়ণ সেলের আহবায়ক সেলিম আউয়াল। অনুষ্ঠানে বঙ্গবীর ওসমানীকে নিবেদিত কবিতা পাঠ করেন সংসদের সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক আব্দুল মুকিত অপি এডভোকেট, কামরুল আলম, নাঈমা চৌধুরী, কুবাদ বখত চৌধুরী রুবেল, সৈয়দ মুক্তদা হামিদ, সাজ্জাদুর রহমান, মুয়াজ বিন এনাম, শাহীদ হাতিমী, আব্দুস বাসিত, কোকিল দাস, আবুজর মাহতাবি, শাহ সরোয়ার আলী। সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন কার্যকরী পরিষদের সদস্য মাওলানা ফজলুল করিম আজাদ।
হারুনুজ্জামান চৌধুরী বলেন, জাতির গর্ব করার মতো কিছু মানুষ থাকেন জেনারেল ওসমানী ছিলেন তাদেরই একজন। রাজনৈতিক মতভিন্নতা সত্ত্বেও জাতীয় হিরোদেরকে, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধাদের শ্রদ্ধা জানাতে হবে, অন্যথায় আমরা নিজেদের পরিচয় হারিয়ে ফেলবো। নওশাদ আহমদ চৌধুরী বলেন, ওসমানী ছিলেন মানবিক আচরণ সমৃদ্ধ মানুষ। দেশপ্রেমে তিনি ছিলেন অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।
এমাদুল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন বলেন, সাহিত্য সংসদের সাথে ওসমানীর ব্যক্তিগত ও পারিবারিক সম্পর্ক ছিলো। ওসমানীর জন্ম শতবার্ষিকীর আয়োজন করে সংসদ একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছে। কিন্ত জন্ম মৃত্যু বার্ষিকী পালনে ওসমানীর নাম সম্বলিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নির্লিপ্ততা দুঃখজনক। বিশেষ করে ওসমানীর জন্ম শত বার্ষিকীতে অন্ততঃ তাদের কিছু একটা করা উচিত ছিলো।
কেমুসাস’র সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী বলেন, আমরা যদি গুণীজনদেরকে সম্মান না জানাই তাহলে গুণীজনের জন্ম হবে না। সভাপতির বক্তব্য কেমুসাসের সহসভাপতি আ.ন.ম. শফিকুল হক বলেন,বঙ্গবীর ওসমানীর সময়ানুবর্তীতা, শৃংখলাবোধ বিশেষ করে জাতির প্রতি তার কমিটমেন্ট আমাদের জন্যে অতুলনীয় ও অনুসরনীয়। তার জন্ম সিলেট তথা বাংলাদেশের জন্যে আর্শীবাদস্বরূপ।

আরও পড়ুন



বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয় গণপরিষদের সভা

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক:বৃহত্তর জৈন্তিয়া কেন্দ্রীয়...