এমসি কলেজে বইমেলার উদ্বোধন-আলোকিত সমাজ গঠনে বই পড়ার বিকল্প নেই

Alternative Text
,
প্রকাশিত : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯     আপডেট : ৩ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মো. আব্দুল বাছিত: সিলেট তথা বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন বিদ্যাপীঠ এম.সি কলেজ, সিলেট-এ তিন দিন ব্যাপী বইমেলার উদ্বোধন করা হয়েছে। এমসি কলেজ কবিতা পরিষদের আয়োজনে তৃতীয়বারের মত এই বইমেলার উদ্বোধন করেন কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর নিতাই চন্দ্র চন্দ। বুধবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় কলেজ ক্যাম্পাসের বইমেলার উদ্বোধন করেন তিনি।
‘এসো বইয়ের সঙ্গে করি মিতালী’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বইমেলার মূল মঞ্চে সকাল দশটায় জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনা’র মধ্য দিয়ে শুরু উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। এর আগে সকালবেলা বর্ণে বর্ণে কবিতার পথে প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কলেজের শহীদ মিনার পুস্পস্তবক অর্পণ করেন মুরারিচাঁদ কবিতা পরিষদ সদস্যরা। কলেজের বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও মুকপের উপদেষ্টা ড. সাহেদা আখতারের স্বাগত বক্তব্যে শুরু হওয়া মূল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন কলেজ উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মো. সালেহ আহমদ। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক তোতিউর রহমান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক শামীমা চৌধুরী, সংগঠনের উপদেষ্টা সুনীল ইন্দু অধিকারী ও শেখ নজরুল ইসলাম এবং শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মুকপের সভাপতি সুমন চন্দ্র পাল।
এসময় বক্তারা বলেন, বই মানুষের সবচেয়ে দিক-নির্দেশক বন্ধু। একজন বন্ধু মানুষকে অন্যায় পথে ধাবিত করতে পারে, কিন্তু সত্যিকার একটি মননশীল বই পাঠককে সঠিক পথের সন্ধান দেবে। তাঁর চিন্তা-চেতনার পরিবর্তণ ঘটিয়ে সুন্দর ও পরিশীলিত মনের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়তা করবে। একটি আলোকিত ও সুন্দর সমাজ গঠনের জন্য বই অধ্যয়নের বিকল্প নেই। মুরারি চাঁদ কবিতা পরিষদের (মুকপ) এই আয়োজন তরুণ সমাজ তথা পাঠককে বইয়ের দিকে আকৃষ্ট করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। পরে প্রধান অতিথি কলেজ অধ্যক্ষ এবং অন্যান্য অতিথিবৃন্দ মেলা মেলা উপলক্ষে প্রকাশিত কবিতা পরিষদের সাহিত্য সাময়িকী ‘জাগরণে’র মোড়ক উন্মোচন করেন।
পরে বিকাল ৩টার দিকে বইমেলা মঞ্চে মুরারিচাঁদ ডিবেট ফেডারেশনের দু’টি দল সংসদীয় বিতর্কে অংশগ্রহণ করে। বইমেলায় প্রাকৃত প্রকাশ, বাসিয়া প্রকাশনী, পাপড়ি প্রকাশ, জসিম বুক হাউস, শৈলী ও এমসি কলেজ ছাত্রলীগের ‘একুশ’ সহ মোট ২৩ টি প্রকাশনা ও লাইব্রেরি স্টল অংশ নিয়েছে। মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত চলবে। মেলায় প্রতিদিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভার পাশাপাশি মুক্তমঞ্চে কবিতা পাঠ ও মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠিত হয়। বইমেলা চলাকালে মুরারিচাঁদ কবিতা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সজল মালাকারের কাছে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা আজ শুধুমাত্র পাঠ্য বইয়ের মধ্যেই নিজেদেরকে সীমাবদ্ধ রাখছেন। যার কারণে তাদের মেধার বিকাশ হচ্ছে না। মূলত শিক্ষার্থী তথা তরুণ প্রজন্মের চিন্তা-চেতনা যাতে আধুনিক, বিজ্ঞানসম্মত ও তথ্য-প্রযুক্তির অবাধ ব্যবহারে নষ্ট না হয়, সেজন্য সাহিত্যের দিকে ধাবিত করতে হবে। এর মাধ্যমে তাদের মেধা-মন ও মননে সুষ্ঠু-সুন্দর চিন্তার বিকাশ সাধন হবে। একটি আলোকিত বিশ্ব গড়তে যুবক সমাজ যাতে উদ্বুদ্ধ হয়, সে লক্ষ্যেই আমাদের প্রচেষ্টা।


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন