একজন তিনি, অত:পর তিনি

প্রকাশিত : ০৬ মার্চ, ২০১৯     আপডেট : ১ বছর আগে  
  

ইছমত হানিফা চৌধুরী: সমাজ বিজ্ঞানি ক্রিস্টোফার মার্লে বলেছেন- একটি শিশু পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করে অনাবিল সুন্দরের প্রত্যাশা নিয়ে। সেই সুন্দরের উপমা দিয়ে কিছু ভাগ্যবান মানুষ, চারপাশকে সুন্দর করে অথবা সুন্দর করার প্রয়াস নিয়ে জীবনের অংকের দীর্ঘ সময় শেষে সফলতার চাবি নিয়ে সুখের দরজা খুলে, যে বাতাসে মোহিত হয় চারপাশ, সুন্দর সাবলীল স্বপ্ন চারনে, আপন মহিমায় রোপিত চারা বৃক্ষে রূপ নিয়ে সুন্দর করে তোলে চারপাশÑসমাজ, রাষ্ট্র, এবং বিশ^। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী তাদের একজন। যার কর্মময় জীবন শাব্দিক অর্থে এক অনন্য অনাবিল সুন্দর। আবার এই সত্তাকে ছাপিয়ে গেছে লেখক জুবায়ের সিদ্দিকী।
লেখকের নিজের অন্তরে একটি মানব প্রকৃতি আছে এবং লেখকের বাইরে সমাজে একটি মানব প্রকৃতি আছে। অভিজ্ঞতা সূত্রে, প্রতিসূত্রে এবং নিগূঢ় ক্ষমতা বলে এই উভয়ের সম্মিলন হয়। যা লেখক জুবায়ের সিদ্দিকীর মাঝে সহজেই দেখা যায়। এই লেখকের লেখা পড়ে মনে পড়ে যায়, সক্রেটিসের কথা, যেখানে সম্ভাবনাময় মানুষ সম্পর্কে বলতে গিয়ে সক্রেটিস বলেছেন-‘আমি এথেন্সিয় বা গ্রিক নই, আমি বিশ^নাগরিক।’
বিভিন্ন ঋতু মানুষের অনুভূতি ও চেতনার উপর বিভিন্ন প্রভাব ফেলে, তেমনি একজন লেখকের লেখা পাঠক বলি আর লেখক বলি সবার উপর তেমনি প্রভাব ফেলে। সেই অর্থে তিনি সফল লেখক। অস্বীকার করার উপায় নেই মানুষ হলো বহুজিনিসের সমাহার। তাই সে নিজের জন্য কাজ করে চলে অন্তর্নিহিত শক্তিতে। লেখক জুবায়ের সিদ্দিকীকে দেখেছি মলাটবন্দী বইয়ের পাতায়, ছাপার অক্ষরে। আবার আমার সৌভাগ্য আমি শিক্ষক জুবায়ের সিদ্দিকীকে দেখেছি স্কুলার্সহোম স্কুল এন্ড কলেজের সবুজের গালিচায় সাজানো বাগানে। যেখানে তিনি একজন মানুষ গড়ার কারিগর। শিক্ষক ছাত্রকে উজাড় করে জ্ঞান দিতে পারেন। জ্ঞানী হতে হলে পুঁিথগত বিদ্যা যথেষ্ট নয়। তাই শিক্ষক হিসেবে যখন তিনি পাঠ দান করেন, যে কোন শিক্ষার্থী তার প্রতি আকৃষ্ট হতে পারে।
ব্রিগেডিয়ার জুবায়ের সিদ্দিকী। কখনো ছাপিয়ে যেতে পারেননি এক চরিত্র থেকে অন্য চরিত্রে, তিনি যেমন একজন সফল প্রিন্সিপাল, একজন সু লেখক। তার এই গুণাবলীর সমন্বয় দেখলে মনে পড়ে এপিকটেটাস’র সেই বিখ্যাত কথা- প্রথমে জানো তুমি কে, তারপর সেভাবেই আচ্ছাদিত করো। যার প্রতি ফলন দেখতে পাই গুণী মানুষের চারিত্রিক বৈশিষ্টে। বিনয়ী হতে শেখার জন্যে কোন স্কুল নেই, এ মানুষের মধ্যকার এক অনন্য সাধারণ গুণ।
প্রিন্সিপাল ব্রিগেডিয়ার জুবায়ের সিদ্দিকী তার কাজের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্তের সৃষ্টি করে যাচ্ছেন, তিনি এই কাজের মধ্যে বেঁচে থাকবেন। বিশ^ মানবের বাসস্থান একদিকে পৃথিবী আর একদিকে সমস্ত মানুষের স্মৃতি লোক। মানুষ জন্ম গ্রহণ করে নিখিল ইতিহাসে। আমি ব্যক্তি হিসেবে জনাব জুবায়ের সিদ্দিকী সাহেবকে দেখি যখনই দেখা হয় সাথে থাকেন আর কিছু আলোকিত মানুষ। এটাই সত্য একজন যোগ্য লোকের পেছনে সর্বদাই অনেক যোগ্য ব্যক্তিরা থাকেন। হেনরি এ্যাডামস এর ভাষায়- শিক্ষকের প্রভাব অনন্তকালে গিয়েও শেষ হয় না। যেহেতু আমি প্রিন্সিপ্যাল জুবায়ের সিদ্দিকীকে বেশি দেখেছি ,অনেক সময় অভিভূত হয়েছি, ছাত্রদের তিনি যেভাবে নিয়মানুবর্তিতা, এবং শিষ্টাচার শিক্ষা দেন। এই সময় জ্ঞান শিক্ষা একজন মানুষকে ভবিষতে সুনাগরিক এবং একজন সু-মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে অনেক ভূমিকা রাখে। তার ছাত্রদের সফলতায় এর প্রতিফলন পরিলক্ষিত হয়। সর্বোপরি, গুণীজনকে এমন সংর্বধনায় সংবর্ধিত করে,যারা দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন তাদের প্রতি অসংখ্য ধন্যবাদ। আমরা বিশ^াস করি যে সমাজে গুণীজনকে সম্মান করা হয়, সেই সমাজ আর বেশি গুনে গুনান্বিত ব্যক্তি জন্ম দিতে পারে।
সফলতায় হয় উদ্বেগের মুত্যু আর নির্লিপ্ততার জন্ম।এই জন্মের ভেতর দিয়ে দীর্ঘ জীবন ধারন করে এগিয়ে যাওয়া সিলেটের তথা সারা বাংলাদেশের একজন গুণী ব্যক্তি ব্রিগেডিয়ার জুবায়ের সিদ্দিকীর উত্তরোত্তর সাফল্য ও শান্তিময় সুস্থ জীবন কামনা করি।

আরও পড়ুন



উন্নয়নে সবাইকে নিয়ে কাজ করবো

সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক : সিলেট সিটি...

ধল আদর্শ যুব পরিষদ সিলেটের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার ধল গ্রামে...