একজন কামরানের বিদায়

প্রকাশিত : ১৫ জুন, ২০২০     আপডেট : ৩ মাস আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মিযানুর রহমান মানুষ হিসাবে বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ছিলেন অসাধারণ। রাজনীতিবিদ হিসাবে তাঁর সবচেয়ে বড় গুণ ছিল মানুষকে ছোঁয়া। দল, মত নির্বিশেষে তিনি মানুষের হৃদয়কে জয় করতে পেরেছিলেন তার অমায়িক আচরণে। অনেকে এটাকে ক্যারিশমা বলছেন। সম্মানের সঙ্গে ভিন্নমত করছি। কারও সঙ্গে তুলনা করবো না। তবে এটুকু বলবো, কামরানের মধ্যে মেকি বা ভান-ভনিতা কখনো দেখিনি। তিনি মানুষটাই হয়তো এ রকম।

আমার এ ছোট্ট জীবনে বড় অনেক মানুষের সান্নিধ্য পেয়েছি পেশাগত কারণে। দেখছি তাদের বিশালত্ব। এমনি এমনি বড় হওয়া যায় না। বিনয়-ভদ্রতা স্বহজাত না হলে প্রকৃত অর্থে বড়ত্ব আসে না। ভান বা মেকি ক্যারিশমা আউট অফ ক্যামেরা বেশিক্ষণ ধরে রাখা যায় না। এটা আমার উপলব্দি। গুরুজনের মূল্যায়ন হয়তো ভিন্ন। শ্রদ্ধেয় সেলিম আউয়ালের ভাষ্যটি এখানে প্রাসঙ্গিক। তার স্ট্যাটাসটি ছিল এমন “সামাজিক কাজে বিভিন্ন সময় কামরান ভাইয়ের কাছে গিয়েছি, ‘না’ শব্দটি কখনো উচ্চারণ করেননি”

প্রখ্যাত গল্পকার সেলিম আউয়ালই নন, আমার মনে হয় দেশ-বিদেশে বাংলাদেশি এবং বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত যে যেখানে আছেন, তাদের মাঝে কামরান নামটি বা তাঁর প্রতিচ্ছবিটি মর্যাদার আসন করে নিয়েছে। এর কারণ ব্যক্তি-বিশেষের কাছে ভিন্ন। জন-নন্দিত ওই রাজনীতিকের কোনো গ্রুপ বা ক্যাডার বাহিনী ছিল বলে আমার জানা নেই। আর এ কারণেই হয়তো তাকে বারবার হোঁচট খেতে হয়েছে। তাকে মেয়র বা সিলেটের কামরান হিসাবেই দুনিয়া থেকে বিদায় নিতে হয়েছে।

কাকডাকা ভোরে মোবাইলটা হাতে নেয়ার পর ডিকাব ম্যাসেঞ্জার গ্রুপে ‘সময় টিভি’র রিপোর্টের লিংটা দেখেও বিশ্বাস হচ্ছিলো না। মুহুর্তেই পরখ করলাম। দেখলাম সত্য এটাই- সিলেটের কামরান, আমার মতো অনেকের ‘কামরান ভাই’ আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। বন্ধুবর আরমান আহমদ শিপলু ৯৭/৯৯ গ্রুপে তার বাবা সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছেন। বলা বাহুল্য যে, আমাদের প্রত্যেককেই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। করোনাকাল বা অন্য সময়। কিন্তু সব মৃত্যু তো মানুষকে কাঁদায় না, আহাজারি দূরে থাক। দুনিয়ার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ফেসবুকের জমিনে হৃদয় নিংড়ানো স্ট্যাটাসে ‘একজন কামরান’ কে স্মরণ এবং তার মৃত্যু সংবাদটি শেয়ার করার যে তাড়া দেখছি, তাতে এটাই অনুমেয় কামরানের রেখে যাওয়া জীবন দুনিয়ার বিচারে স্বার্থক!

আমার ধারণা রাজনীতি, ধর্ম, গোত্র-সম্প্রদায়, সিলেটি, নন-সিলেটি সামজিক যত বিভাজন রেখা আছে আজ সব মুছে গেছে একজন কামরানকে ভার্চুয়ালি বিদায় জানানোর এ আয়োজনে। করোনা পরিস্থিতি বা বাস্তবতা বিবেচনায় নিশ্চয়ই তার নামাজে জানাজা, দাফন-কাফন কিংবা শেষকৃত্যের আনুষ্ঠানিকতার আকার ফিজিক্যালি বড়ো হবে না। তবে সিলেট বা কামরানকে যারা চেনেন, তাঁর সঙ্গে ব্যক্তিগত পরিচয় থাকুক বা না থাকুক তাদের আজ একবারের জন্য হলেও মনটা খারাপ হবে। তাদের মনের মনি কোঠায় নিশ্চয়ই এই প্রার্থনাটুকু উঁকি মারবে- পরপারে ভালো থাকুন কামরান।

মিযানুর রহমান: কুটনৈতিক রিপোর্টার, মানবজমিন
ঢাকা, সোমবার, ১৫ইজুন
সময়: ৬:০০


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

হারিছ আলী ছিলেন রেনেসাঁকামী সম্পূর্ণ মানুষ

         ডা. মোহাম্মদ হারিছ আলী ছিলেন...

আজ লাখাইয়ের কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস

         সিলেট এক্সপ্রেস ডেস্ক: আজ ১৮...

সি আর দত্তের মহাপ্রয়াণে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রার্থনা

         মহান মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার,স্বাধীন বাংলাদেশের...