আলোর অভিযাত্রী

প্রকাশিত : ০২ মার্চ, ২০১৯     আপডেট : ১ বছর আগে

স্বপন কুমার রায়:
¯্রােতের অনুকূল চলতে পারে অনেকেই, কেউ কেউ আছে যে ¯্রােতের প্রতিকুলে চলে পৌঁছে যেতে পারে গন্তব্যে। এমনি মুষ্টিমেয় কয়েকজন মধ্যে আমাদের ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.) একজন। যিনি নিজের প্রজ্ঞা, নিষ্ঠা, সততা সর্বোপরি নিঃসীম ভালবাসায় হাল ধরে আছেন এক বিশাল কর্মযজ্ঞের প্রতিষ্ঠান। পশ্চিম পাশে বয়ে চলা ‘শ্রী কৃষ্ণের খাল’ আর উত্তর পাশের ‘বুড়ি নদী’। নদী দু’পাশে হিজল ডুমুর আর বেতবন। নদীর পারে এক জোড়া পুরনো বিশাল সাইজের শিমুলবৃক্ষ। মনোরম প্রাকৃতিক সাজে সরল এক গ্রাম পাঁচপাড়া। ১৯৪৯ সালের ৯ মার্চ, শনিবার সেই গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আজকের আলোচ্য এই মহান ব্যক্তিত্ব। তারপরের সময়টা শুধু ঘটনাবহুল ইতিহাস।
১৯৬৭ সালে নিতান্ত কৌতুহলের বশেই সেনাবাহিনীতে ইন্টারভিউ দেয়া। তখন থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত তিনি ছিলেন দূরন্ত ঈগল। ঈগলের চোখে চষে বেড়িয়েছেন বিশে^র নানা প্রান্তর। সমুদ্র মন্থন করে তিনি তুলে আনতে চেয়েছিলেন অমৃত। কতটা সফল হয়েছেন কিংবা কতোটা ব্যর্থ হয়েছেন তা আশু সমযই বলতে পারবে।
সেনাবাহিনী থেকে অবসর নেয়ার পর শুরু হয় তার নতুন জীবন যুদ্ধ। নাইজেরিয়ার লেগোসে একটি ফরাসি প্রি-শিপমেন্ট কোম্পানিতে মাস চারেক চাকরি করার পর অ্যামেরিকাতে সেটেলড্ হওয়ার চেষ্টা। অত:পর অনেক কিছু বিবেচনা করে দেশে স্থায়ী বসবাসের জন্যই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।
দেশে ফিরে প্রথমে আই বি আই টি-তে অধ্যক্ষ হিসেবে যোগ দেন। তার কিছু দিন পরেই ২০০২ সালে স্কলার্সহোমের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সে সময় মাত্র নয়জন শিক্ষক আর উনিশ জন শিক্ষার্থী নিয়ে ইলেকট্রিক সাপ্লাই রোডে যাত্রা হওয়া স্কলার্সহোম নামক চারাগাছ ধীরে ধীরে শাখা-প্রশাখা বিস্তার করে পুরো সিলেট জুড়ে। ২০০৫ সালে শাহি ঈদগাহে মনোরম পরিবেশে স্কলার্সহোম মেইন ক্যাম্পাস স্থানান্তরিত হয়। ছোট চারাগাছ ইতোমধ্যে মহীরূহে পরিণত হয়। ছাত্র সংখ্যা ৮০০ ছাড়িয়েছে, শিক্ষক সংখ্যা ৭০ জন।
চারাগাছ থেকে মহীরূহ; স্কলার্সহোম এমনি এমনি হয়ে উঠেনি। একজনের অবদান অনদ্ধীকার্য। তিনি ব্রি. জে. জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.)। কঠোর শ্রম, মেধা, নিষ্ঠা সততার সঙ্গে কাজ করে তিনি আজ এই প্রতিষ্ঠানের সুনাম ছড়িয়ে দিয়েছেন সারা বিশে^।
কঠোর শৃঙ্খলাবোধ আর আর আন্তরিকতা-এই দুটোকে পুঁজি করে ধীরে ধীরে স্কলার্সহোম উন্নতির দিকে এগিয়ে চলে। স্কলার্সহোমে শিক্ষকতা করার সুবাদে তাঁকে কাছ থেকে দেখার সৌভাগ্য হয়। সব কিছু ছাপিয়ে আমার মনে হয় স্কলার্সহোম উন্নতি করার মূল কারনটা হচ্ছে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকী (অব.)নিজে। তিনি এটাকে প্রতিষ্ঠান মনে করেন না, মনে করেন নিজের পবিত্র গৃহ আর প্রতিষ্ঠানের কর্মরত সদস্যরা তার সেই পরিবারের সদস্য। আর এই কেমিস্ট্রিটাই প্রতিষ্ঠানটির উন্নতির মূল কারন।
ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জুবায়ের সিদ্দিকীর (অব.) সত্তর বছর পূর্তিতে কায়োমনোবাক্যে প্রার্থনা করি তিনি সুস্থ থাকুন এবং তাঁর আলোকিত জ্ঞানের রশ্মি দিয়ে দৃর করতে থাকুন সিলেটের অজ্ঞানতার অন্ধকার।

পরবর্তী খবর পড়ুন : জন্মদিনে শুভেচ্ছা

আরও পড়ুন

নিন্দার কাটা

মিজানুর রহমান মিজান নিন্দার কাটা...

হাজারতম সাহিত্য আসরের উৎসব বর্ণাঢ্যভাবে উদযাপন করা জরুরি

কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের ৯৯৫...

সিলেটে আর্ন্তজাতিক হোলি উৎসব-২০২০

ঐতিহ্যে লালিত মণিপুরী সম্প্রদায়ের রয়েছে...