আমার কোনো বন্ধু নেই

প্রকাশিত : ৩০ আগস্ট, ২০১৮     আপডেট : ২ বছর আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রুহুল আমিন দিনার : আজকাল খুব অদ্ভুত একটা বিষয় আমার মাথায় ঘোরপ্যাঁচ খাচ্ছে, যেটা অনেকের কাছে হাস্যকর মনে হতে পারে। প্রথম আমার কাছেও এমনটা মনে হয়েছিলো কিন্তু চিন্তাটা যখন একটা মাপকাঠির ওপর দাড় করালাম তখন মনে হলো যে না, আমি যেটা চিন্তা করছি এটা সভার সাথে না মিললেও কিছু সংখ্যক মানুষের জীবনের সাথে মিলবে। তো সে মানুষদের কথা চিন্তা করেই এই লিখা।
আমার কোনো বন্ধু নেই?
স্বার্থ ছাড়া মানুষ নেই। সম্পর্ক যেখানে হবে, কোনো না কোনো স্বার্থ সেখানে থাকবে। হোক সেটা আর্থীক অথবা অন্য কোনো ধরনের। তেমনি ভাবে সবার জীবনে প্রথম যৌবন জীবনে একটা সম্পর্কের সৃষ্টি হয়,সেটা হলো বন্ধুত্ব। ভালো লাগা, ভালো বাসা সেটা অন্য একটা ব্যাপার আমি কেবল এ সম্পর্কের বিপরীতে যে সম্পর্ক হয় সেটার কথাই বলছি।
বন্ধুত্ব সবার জীবনে আসে, এটা স্বাভিক ব্যাপার কিন্তু কারো জীবনে বন্ধুত্ব মধুময় কারো জীবনে ভোগান্তি ছাড়া আর কিছু নয়। ঠিক মনে আছে কিনা জানিনা, একটা সময় ছিলো যখন মানুষ ইয়ারানা পাততেন। সেটা অনেক আগে, বাপ চাচার আমলে। শুনেছি তখন নাকি ঘরোয়া পরিবেশে একটা অনুষ্ঠান হতো যেখানে তাদের বন্ধুত্বর স্বীকৃতি দেয়া হতো। তারপর থেকে গ্রামের সবাই ধরে নিতো অমুক তমুকের ইয়ার মানে বন্ধু। কিন্তু এখন যুগ পালটে গেছে এসব আর নেই সবাই এখানে নিজেকে নিয়ে বেশি ব্যস্ত এখন আর সেই আগের মতো স্বীকৃত বন্ধুত্ব হয়না। হয় চলার পথে অডিনারি সম্পর্ক। সেই অডিনারি সম্পর্কেন নাম আজকের এই বন্ধুত্ব।
.
স্কুল জীবনে যাদের সাথে বন্ধুত্ব ছিলো সেটা থাকতো খুব সম্ভব সীমিত স্বার্থের ভিত্তিতে। চাওয়ার পাওয়ার গন্ডিটা ছোট ছিলো বিধায় হয়তো স্বার্থ টাও ক্ষম থাকতো। এজন্য মানুষ শেষ জীবনে এসে তাঁর ছোট বেলার বন্ধুদের কে বেশি স্বরন করে।
.
কলেজ জীনে বন্ধুত্ব হয়না বললে চলে, মুখের সম্পর্ক হয়। যা একটু আদুটু কথাবার্তার মধ্যে সে সম্পর্ক সীমাবদ্ধ থাকে।
এর পরে যুবকের সীমানা বড় হয়, জড়িতো হয় মূলধারার সামাজের সাথে। এখানে পুড়োখাওয়া মানুষের বসবাস বেশি। যেই মাত্র যুকটি এই সমাজের সাথে মিশতে চায় তখন তাকে অনেক ধরনের বন্ধুরা হাতছানি দিয়ে ডাকে। বাদ ভালো অনেক অনেক বন্ধু সেখানে কোনো সীমানা প্রাচীর নেই। নেই কোনো বাদা।
আর এই জায়গায় এসেই মানুষ প্রতারিত হয় বেশি।
.
মানুষ সীদ্ধান্ত নিতে ভুল করে, চয়েজ করতে ভুল করে এটা খু্বি স্বাভিক ব্যাপার কিন্তু এই সীদ্ধান্ত আরা চয়েজের মধ্য দিয়ে জীবনের মুড়ই অনেক সময় পাল্টে যায় কথায়। কথায় আছে সত সঙ্গে স্বর্গ বাস অসত সঙ্গে সর্বনাশ।

(দ্বীতিয় পর্বে সমাপ্তি হবে)

৩০/০৮/১৮


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পরবর্তী খবর পড়ুন : ছেঁড়া তন্তুর গান

আরও পড়ুন

সিলেটে সিলকো সংবাদের ১ম বর্ষপূর্তি উদযাপন

         গৌরবের এক বছর পূর্তি ও...

চেতনা যুব পরিষদের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

         ঈদের আনন্দ সমাজের সকলের কাছে...

নেপালকে উড়িয়ে দিল তাজিকিস্তান

         নেপালকে উড়িয়ে দিয়ে নিজেদের শক্তিমত্তার...