অসহায় ও দরিদ্র মানুষের সাংবিধানিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে– তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

প্রকাশিত : ২৮ এপ্রিল, ২০১৮     আপডেট : ২ বছর আগে

মো. আব্দুল বাছিত:

অত্যন্ত উৎসব ও আনন্দমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে ‘উন্নয়ন আর আইনের শাসনে এগিয়ে চলেছে দেশ, লিগ্যাল এইডের সুফল পাচ্ছে সারা বাংলাদেশ’ শ্লোগানকে ধারণ করে শনিবার সকালে সারা বাংলাদেশের ন্যায় জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা, সিলেট-এর উদ্যোগে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। র‌্যালি সিলেট জেলা আদালত প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে বদরবাজারস্থ গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট প্রদক্ষিণ করে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আলোচনা সভায় এসে মিলিত হয়। জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা, সিলেট জেলা কমিটির চেয়ারম্যান ও সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ ড. মো. গোলাম মর্তুজা মজুমদারের সভাপতিতে¦ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার । প্রধান অতিথির বক্তবে মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, সভ্যতার বিকাশের ধারাবাহিকতাকে অব্যাহত রাখতে আইন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দেশের মধ্যে যদি আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হয়, তবে সেই দেশের সর্বত্র শান্তি বিরাজ করে। এর পাশাপাশি মানুষের মানসিকতার পরিবর্তন হলে দেশের সত্যিকার উন্নয়ন সাধিত হবে এবং এর মাধ্যমেই বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হবে। দেশে ডিজিটাল অপরাধ দমনে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দক্ষতা ও সক্ষমতা প্রদর্শন করেছে। সাধারণ মানুষের পাশে আইনী সহায়তা নিয়ে লিগ্যাল এইড যে প্রশংসনীয় কাজ করছে তা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি সমাজের দরিদ্র ও অসহায় মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে। সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তাই কাজ করতে হবে।
সিলেট জেলা লিগ্যাল এইড কমিটির সদস্য সচিব (ভারপ্রাপ্ত) এবং সিনিয়র সহকারী জজ বেলাল উদ্দিনের স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে শুরু হওয়া সভায় বক্তব্য রাখেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. লুৎফুর রহমান, সিলেট মহানগর দায়রা জজ মো. মফিজুর রহমান ভূঁইয়া, নারী ও শিশু দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুহিতুল এনাম চৌধুরী, চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুজ্জামান হিরো, সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পরিতোষ ঘোষ, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-৯, সিলেট-এর কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল আলী হায়দার আজাদ আহমদ, সিলেট বিভাগের ডিআইজি (প্রিজন) এ কে এম ফজলুল হক, সিলেটের অতিরিক্ত ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট সন্দীপ কুমার সিংহ, পুলিশ সুপার মো. মনিরুজ্জামান, সিলেটের সরকারি কৌসুলী খাদেমুল মিল্লাত মো. জালাল, সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ লালা, এডিশনাল পাবলিক প্রসিকিউটর মো. শামসুল ইসলাম, সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মো. আব্দুল কুদ্দুস। আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন সিলেটের সিনিয়র সহকারী জজ তাসলিমা শারমিন। আলোচনা সভা জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে শুরু হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন সিলেট জেলা শিল্পকলার শিল্পীবৃন্দ। সভায় পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন হাফিজ মাওলানা এমদাদুল হক, গীতা পাঠ করেন শিমুল ব্যানার্জী। জাতীয় আইনগত সহায়তায় ২০১৭ সালের সেরা আইনজীবী প্যানেল ঘোষণা করা হয় এডভোকেট বেগম ফারজানা হাবিব চৌধুরী এবং এডভোকেট মোহাম্মদ শহিদুল্লাহকে। অনুষ্ঠানের অতিথিবৃন্দ তাদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন। সভায় জাতীয় আইনগত সহায়প্রদান সংস্থার উপকারভোগীর মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন আহমদ আলী ওরফে কালী ভট্টাচার্য। সাধারণ মানুষসহ সকল পেশার মানুষদেরকে আইনী সেবার বিষয়ে সচেতন করে তুলার জন্য ‘গরীব দু:খীর মামলার ব্যয়, শেখ হাসিনার সরকার দেয়’ নামক নাটিকা পর্দার মাধ্যমে উপস্থাপনা করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানে চীফ মেট্রোপলিট ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুজ্জামান হিরোর রচনা ও নির্দেশনায়, নাকিব চৌধুরীর পরিচালনায় এবং সিলেট জেলা জজ আদালতের প্রবেশন অফিসার দবির হোসেনের উপস্থাপনায় নাটক ‘উপায় নাই’ মঞ্চায়িস্থ করা হয়। সভায় অতিথিবৃন্দ অসহায় ও দরিদ্র মানুষের আইনী সহায়তায় লিগ্যাল এইডের কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং একটি সুন্দর ও সমৃদ্ধশালী দেশ গঠনে লিগ্যাল এইডের গুরুত্ব অনুধাবণ করে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সকলের দায়িত্বও কর্তব্য সম্পর্কে করেন। সভায় ও র‌্যালিতে সিলেটের পুলিশ প্রশাসন, জজ আদালতের বিচারক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

“শিমুল বাগানে ভ্রমণ”

শাকেরা খানম শাকী:  বৃহস্পতি বার,...

আশক আলী ফিটনেস ক্লাবের দীর্ঘ পদযাত্রা সম্পন্ন

আশক আলী ফিটনেস ক্লাবের ২৫কিলোমিটারের...

একবার নিরলে

  মিজানুর রহমান মিজান ভাবলে...