অভিযুক্তকে বাঁচাতে কেন মিথ্যা বলেছিলেন তরুণী?

প্রকাশিত : ০৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০     আপডেট : ২ সপ্তাহ আগে
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এক তরুণী মুঠোফোনে পুলিশের গতিবিধির সব খবর জানাচ্ছিলেন ভারতের কলকাতার আনন্দপুর কাণ্ডের অভিযুক্ত অভিষেক কুমার পান্ডেকে। আর ‘নির্যাতিত’ ওই তরুণীর কাছ থেকে আগাম খবর পেয়েই পূর্ব যাদবপুরের গেস্ট হাউস থেকে গত সোমবার বিকেলে পালিয়ে যান অভিষেক। ঘটনার দিন থেকে আগাগোড়া পুলিশকে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করেছেন ওই তরুণী।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়, গতকাল মঙ্গলবার রাতে অভিষেক গ্রেপ্তার হওয়ার পর গোটা ঘটনা অনেকটাই স্পষ্ট হয় পুলিশের কাছে। নয়াবাদের বাসিন্দা ‘নির্যাতিতা’ তরুণী, অভিষেক, তার মা ও জামাইয়ের জবানবন্দি থেকে পুলিশ জানতে পেরেছে, বেশ কয়েক বছর ধরে অভিষেকের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ওই তরুণীর। তাদের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু লকডাউনের জন্য বিয়ে পিছিয়ে যায়।
গত শনিবার রাতের ঘটনা প্রসঙ্গে অভিষেককে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পেরেছে, অন্য সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মতো ওই রাতেও হবু স্ত্রীকে (নির্যাতিত তরুণী) নিয়ে বেরিয়েছিলেন তিনি। বাড়ি ফেরার পথে কোনো বিষয় নিয়ে দুজনের ঝগড়া শুরু হয়। তা নিয়ে গাড়ির মধ্যেই শুরু হয়ে যায় ধস্তাধস্তি, মারামারি। ওই তরুণী অভিষেকের হাতে কামড় দেন, পাল্টা অভিষেকও হবু স্ত্রীয়ের মুখে ঘুসি মারেন। ওই অবস্থায় দুজনের ঝগড়া এমন পর্যায়ে পৌঁছয় যে, তরুণী গাড়ি থেকে নেমে যেতে চান।কেন মিথ্যা বললেন তরুণী?

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ওই তরুণী জানান, অভিষেক পালিয়ে যাওয়ার পর বিপদে পড়েন তরুণী। কারণ নীলাঞ্জনা গুরুতর জখম হন। তরুণী তাই সাহস করে বলতে পারেননি যে, অভিষেক তার পরিচিত। প্রথমে তিনি অভিযোগ দায়ের করতেও চাইছিলেন না। পরে পরিস্থিতি দেখে তিনি সত্য গোপন করে পুলিশকে জানান যে, অভিযুক্তের নাম অমিতাভ বসু এবং তার সঙ্গে মাত্র কয়েকদিন আগে তার আলাপ হয়েছে।

কীভাবে জানা গেল আসল পরিচয়?

কলকাতা পুলিশ জানায়, তরুণীর দেওয়া ভুল তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই প্রথমে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছিল থানা। পরে তদন্ত শুরু করে গোয়েন্দা বিভাগ। ঘটনার প্রায় ১৮ ঘণ্টা পর রোববার বিকেলে তারা তরুণীর কল রেকর্ড ঘাঁটতে গিয়েই আবিস্কার করেন অভিযুক্তের সঙ্গে নির্যাতিত তরুণীর দীর্ঘদিনের যোগাযোগ। এমনকি ঘটনার পরও তরুণী ফোন করেছিলেন অভিযুক্তকে। তখন জেরার মুখে তরুণী স্বীকার করেন যে, অভিযুক্ত তার হবু স্বামী এবং তার নাম অভিষেক কুমার পান্ডে।

অভিষেকের খোঁজ মিলল যেভাবে?

পুলিশের দাবি, রোববার অভিষেকের বাড়ির ঠিকানা পেয়ে পুলিশ গাড়ির খোঁজ পায়। কিন্তু ততক্ষণে তরুণীর কাছ থেকে পুলিশের গতিবিধির খবর পেয়ে গা ঢাকা দিয়েছেন তিনি। মোবাইল ফোনও বন্ধ। বিভিন্ন সূত্রে খবর পেয়ে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দারা পূর্ব যাদবপুরে একটি গেস্ট হাউসে যায়। কিন্তু সেখানে সোমবার বিকেলে লকডাউনের দিন পুলিশ পৌঁছে দেখে অভিযুক্ত এক ঘণ্টা আগেই পালিয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই গেস্ট হাউসের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালে রোগী নিয়ে আাসা একটি ট্যাক্সি চেপে অভিষেক পালিয়েছেন।

তদন্তকারীদের সূত্রে জানা গেছে, পুলিশ ওই ট্যাক্সিচালকের খোঁজ পায়। তাকে জেরা করে মধ্য কলকাতায় এক আইনজীবীর সন্ধান মেলে। তার কাছে সোমবার সন্ধ্যায় গিয়েছিলেন অভিষেক। কিন্তু ওই আইনজীবী অভিষেকের মামলা নিতে না চাওয়ায় সেখান থেকে ফের পালান তিনি। এরপর মোবাইলের সূত্র ধরেই অভিষেকের খোঁজ মেলে দমদম এলাকায়।

আজ বুধবার অভিষেককে আলিপুর আদালতে তোলা হবে। কলকাতা পুলিশের এক শীর্ষ কর্তার কথায়, ‘এটা সত্যি যে, কোভিড পরিস্থিতিতে থানার লোকবল খুব কম। তাও পুলিশ যদি শুরুতেই রুটিন তদন্ত করত তাহলে এই মামলা এত দূর পর্যন্ত গড়াত না।’


  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও পড়ুন

নবীগঞ্জে মাসিক আইনশৃংঙ্খলা কমিটির সভা

         বুলবুল আহমদ, নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ- নবীগঞ্জ...

সাহিত্য আমাদের জ্ঞানের পরিধিকে বিস্তৃত করে

         সাহিত্য আমাদের জ্ঞানের পরিধিকে বিস্তৃত...